ভারতীয় আর্যভাষা কাকে বলে? এই ভাষার কয়টি স্তর? প্রতিটি স্তর সম্পর্কে অতি সংক্ষিপ্ত ধারণা দাও। [২০১৫] [অথবা] ভারতীয় আর্যভাষার তিনটি স্তর ও তাদের আনুমানিক প্রচলন কাল উল্লেখ করো। [২০১৮]

[উ]

ভারতীয় আর্যভাষা—মূল ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষাভাষীর আর্য জাতির যে শাখাটি ভারতবর্ষে প্রবেশ করে, তাকেই আমরা ভারতীয় আর্যভাষা বলি।

ভারতীয় আর্যভাষার স্তর—ভারতীয় আর্যভাষার তিনটি স্তর। এগুলি হল – (১) প্রাচীন ভারতীয় আর্যভাষা, (২) মধ্য ভারতীয় আর্যভাষা, (৩) নব্য ভারতীয় আর্যভাষা।

(১) প্রাচীন ভারতীয় আর্যভাষা

এই স্তরটির সময়কাল আনুমানিক ১৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ থেকে ৬০০/৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ। চার বেদ, ব্রাহ্মণ, আরণ্যক, উপনিষদ্, সূত্রসাহিত্য এই স্তরে রচিত হয়েছে। এই যুগের শেষভাগে শুরু হয় ধ্রুপদি সাহিত্য। বৈয়াকরণ পাণিনি তাঁর ‘অষ্টাধ্যায়ী’-তে একে সংস্কৃত/দেবভাষা বলেছেন। এই ভাষায় রচিত উল্লেখযোগ্য রচনাগুলি হল – অশ্বঘোষ, ভাস, কালিদাস, ভবভূতি, বিষুশর্মা প্রমুখের কাব্য, নাটক, গল্পসাহিত্য।

(২) মধ্য ভারতীয় আর্যভাষা

এই স্তরটির সময়কাল আনুমানিক ৬০০/৫০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ থেকে ৯০০/১০০০ খ্রিস্টাব্দ। পালি ভাষায়– ত্রিপিটক, প্রাকৃত ভাষায়– হালের ‘গাহাসত্তসঈ’ (গাথাসপ্তশতী), পৈশাচী প্রাকৃত ভাষায়– গুণাঢ্যের ‘বৃহৎকথা’, অবহট্‌ঠ-তে – সরহের ‘দোহাকোষ’ প্রভৃতি এই মধ্য ভারতীয় আর্যভাষায় রচিত।

(৩) নব্য ভারতীয় আর্যভাষা

এই স্তরের আনুমানিক সময়কাল ৯০০/১০০০ খ্রিস্টাব্দ থেকে বর্তমান কাল পর্যন্ত। সাহিত্যিক নিদর্শন বলতে ভারতবর্ষের প্রাদেশিক ভাষাগুলি, যেমন – বাংলা, হিন্দি, অসমিয়া, ওড়িয়া, পাঞ্জাবি, গুজরাটি, মারাঠি প্রভৃতি অসংখ্য নব্য ভারতীয় আর্যভাষায় রচিত সাহিত্য।

উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা
error: সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত