জমিদার সভা সম্পর্কে সংক্ষেপে আলোচনা করো।

[উ] উনিশ শতকে বাংলায় অনেক সভা-সমিতি গড়ে উঠেছিল বলে ঐতিহাসিক অনিল শীল উনিশ শতককে ‘সভা-সমিতির যুগ’ বলে অভিহিত করেছেন। জমিদার সভা (Landholders Society) ছিল এই সময়ের একটি অন্যতম প্রধান প্রতিষ্ঠান।

জমিদার সভার প্রতিষ্ঠা ও প্রতিষ্ঠাতা = জমিদার সভা প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৩৮ খ্রিস্টাব্দে। জমিদার সভার প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে প্রধান ছিলেন রাধাকান্ত দেব, দ্বারকানাথ ঠাকুর, প্রসন্নকুমার ঠাকুর, রাজকমল সেন, ভবানীচরণ মিত্র প্রমুখ। জমিদার সভার সভাপতি ছিলেন রাধাকান্ত দেব। তবে দ্বারকানাথ ঠাকুরকে এই সভার ‘প্রাণপুরুষ’বলা হয়।

জমিদার সভা প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য = (১) জমিদারদের স্বার্থরক্ষা করা।   (২) বিচার বিভাগ, পুলিশ বিভাগ ও রাজস্ব বিভাগের সংস্কার করার জন্য আন্দোলন করা। (৩) ভারতের সর্বত্র চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত প্রবর্তনের জন্য চেষ্টা করা।

গুরুত্ব = জমিদার সভার কার্যাবলির প্রধান সাফল্য হল প্রতি গ্রামে দশ বিঘা পর্যন্ত নিষ্কর জমি রাখতে সরকারের সম্মতি আদায় করা। যদিও জমিদার সভা দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। রাজেন্দ্রলাল মিত্রের মতে, এই প্রতিষ্ঠানই হল ভারতীয় জাতীয় আন্দোলনের অগ্রদূত।

উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা
error: সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত