বাংলা চলচ্চিত্র ক্ষেত্রে হীরালাল সেনের অবদান আলোচনা করো। অথবা, বাংলা চলচ্চিত্রের জনক কাকে বলা হয়? তাঁর অবদান সম্পর্কে সংক্ষেপে আলোচনা করো।

[উ] বাংলা চলচ্চিত্রের জনক বলা হয় হীরালাল সেনকে৷ তিনি বিভিন্ন বিদেশি পরিচালকের সিনেমার প্রদর্শনী দেখে চলচ্চিত্র নির্মাণে অনুপ্রাণিত হন। তাঁর ভাই মতিলাল সেনও তাঁর সহযোগী ছিলেন।

রয়্যাল বায়োস্কোপ কোম্পানি ও হীরালাল সেন

সিনেমার জন্মলগ্নে বাঙালির সন্তান হীরালাল সেন ও মতিলাল সেন ১৯৯৮ সালে গড়ে তোলেন ‘রয়্যাল বায়োস্কোপ কোম্পানি’। ছবি তোলা এবং ছবি দেখানোর জন্য তাঁরা যন্ত্রপাতি কিনে আনেন বিদেশ থেকে। বাংলার গ্রামে গ্রামে তিনি বায়োস্কোপ দেখাতে শুরু করেন।

          হীরালাল সেন ৪ এপ্রিল, ১৮৯৮ খ্রিস্টাব্দে কলকাতার ক্লাসিক থিয়েটারে ছবি দেখান। হীরালাল সেন চলচ্চিত্র নির্মাণের স্বপ্ন দেখতেন। প্রথমদিকে তিনি বিভিন্ন মঞ্চসফল নাটক  যেমন—‘আলিবাবা’, ‘সীতারাম’, ‘সরলা’, ‘ভ্রমর’ ইত্যাদির খন্ডচিত্র নিয়ে একটি ছায়াছবি তৈরি করেন। এটি ক্লাসিক থিয়েটারে দেখানো হয়েছিল। এগুলি ছাড়াও তিনি বিজ্ঞাপনের জন্যেও ছবি বানিয়েছিলেন।

তথ্যচিত্র নির্মাণেরও পথপ্রদর্শক তিনি। বাংলা তথা ভারতীয় চলচ্চিত্রের ইতিহাসে হীরালাল সেন প্রথম তথ্যচিত্রকার হিসেবে পরিচিত তিনি। তাঁর নির্মিত দুটি তথ্যচিত্র হলো—দিল্লি দরবার’ এবং বঙ্গভঙ্গ ও স্বদেশি আন্দোলন বিষয়কেন্দ্রিক।

দুর্ভাগ্যবশত দুই ভাইয়ের মত পার্থক্যে ১৯১৩ সালে ‘রয়্যাল বায়োস্কোপ কোম্পানি’ বন্ধ হয়ে যায়। এবং ১৯১৭ সালে এক বিধ্বংসী আগুনে কোম্পানির বহু ছবি ও যন্ত্রপাতি পুড়ে যায়। এককথায় নির্বাক যুগে হীরালাল সেন ও তাঁর বায়োস্কোপ কোম্পানির অবদান অবশ্য স্মরণীয়।

উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা
error: সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত