তিতুমিরের বারাসাত বিদ্রোহের গুরুত্ব লেখ।

[] বাংলায় ওয়াহাবি আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন মির নিশার আলি, যিনি তিতুমির নামেই পরিচিত ছিলেন। তিনি জমিদার, মহাজন, নীলকর ও ইংরেজ সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন এবং নিজেকে বারাসত অঞ্চলের ‘বাদশাহ’ বলে ঘোষণা করেন। ওয়াহাবি আন্দোলন ছিল ঘোর ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন।

তিতুমিরের বারাসাত বিদ্রোহের গুৰুত্ব :

কৃষক বিদ্রোহ : তিতুমিরের নেতৃত্বে পরিচালিত ওয়াহাবি আন্দোলন ধর্মসংস্কার আন্দোলন হিসেবে শুরু হলেও এটি কৃষক বিদ্রোহের রূপ ধারণ করেছিল। এই বিদ্রোহের মূল চালিকাশক্তি ছিল কৃষকরা।

ইংরেজবিরোধী বিদ্রোহ : তিতুমির বারাসত-বসিরহাটের বিস্তীর্ণ অঞ্চলে ইংরেজ শাসনের অবসান ঘটিয়ে নিজেকে স্বাধীন ‘বাদশাহ’ বলে ঘোষণা করেছিলেন। ইংরেজবাহিনীর বিরুদ্ধে তিনি প্রাণপণ সংগ্রাম করেছিলেন। তিতুমিরের উদ্দেশ্য ছিল ইংরেজ শাসনের অবসান ঘটানো।

জমিদার ও নীলকরবিরোধী বিদ্রোহ : অত্যাচারী জমিদার ও নীলকর সাহেবদের হাতে নির্যাতিত মানুষদের সংগঠিত করে তিতুমির বিদ্রোহ ঘোষণা করেছিলেন।

শ্রেণি সংগ্রাম : তিতুমিরের বারাসত বিদ্রোহ ছিল শোষক শ্রেণির বিরুদ্ধে শোষিত হিন্দু ও মুসলমানদের বিদ্রোহ। এই আন্দোলন ছিল নিম্নবর্গের মানুষের রাজনৈতিক সংগ্রাম ও মর্যাদা রক্ষার আন্দোলন।

উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা
error: সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত