“সবুজের অনটন”—সবুজের অনটন ঘটে কী কী কারণে? কবি কীভাবে এই রোগ থেকে মুক্ত হওয়ার পথ দেখিয়েছেন? অথবা, “সবুজের অনটন ঘটে”–কোথায় সবুজের অনটন ঘটে? কী কারণে সবুজের অনটন ঘটে? সবুজের অনটন কাটাতে কী করা প্রয়োজন বলে কবি মনে করেন?

[] সবুজের অনটনের কারণ = আলোচ্য উদ্ধৃতিটি শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের ‘আমি দেখি’ কবিতার অন্তর্গত। সভ্যনগর গড়ে তোলার প্রচেষ্টায় ক্রমাগত শহর দূষিত হয়েছে, মানুষ আরো অমানবিক হয়ে উঠেছে। বসতির কারণে একের পর এক সবুজ অরণ্য ধ্বংস হয়েছে। শহরের যান্ত্রিক সভ্যতা অরণ্যসম্পদকে প্রতিনিয়ত ধ্বংস করে চলেছে। মানুষের অমানবিতাকেই কবি ‘অসুখ’ বলে চিহ্নিত করেছেন এবং তার ফলে অরণ্যনিধন ঘটে তাকে ‘সবুজ খায়’ বলে ইঙ্গিত করেছেন। এভাবেই সবুজের অনটন অর্থাৎ অভাব ঘটে।

[] মুক্তির উপায় কী = প্রকৃতিপ্রেমী ও পরিবেশ সচেতন কবি গাছ তুলে এনে বাগানে বসানোর আবেদন জানিয়েছেন। কবির প্রয়োজন বৃক্ষদর্শন। কারণ তিনি জানেন গাছের সবুজটুকু শরীরের জন্য ভীষণভাবে দরকার। রোগমুক্তির জন্য, ক্লান্তি উপশমের জন্য সবুজের একান্ত প্রয়োজন। গাছের সাহচর্যে ও সহাবস্থানে মানুষ পায় জীবনের সমৃদ্ধ নিশ্বাস। দু-চোখ ভরে তাই গাছ দেখে যেতে চান কবি।

শহরের অসুখ হাঁ করে প্রতিনিয়ত যে সবুজ গ্রাস করে চলেছে তাকে প্রতিরোধ করার জন্য কবি প্রতিজ্ঞা করেন। নাগরিক জীবনে তাই বৃক্ষকে ফিরিয়ে এনে তিনি শরীর ও মনের যাবতীয় কষ্ট দূর করবেন। নাগরিক জীবনে যে সবুজনিধন যজ্ঞ চলছে তা বন্ধ করতে চান কবি। এই কারণেই মানুষকে তিনি বৃক্ষরোপণের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। জীবনের শান্তি-তৃপ্তি ফিরিয়ে আনার জন্যই কবি বৃক্ষের আশীর্বাদ কামনা করে বৃক্ষরোপণের পরামর্শ দিয়েছেন।

উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা
error: সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত