“শহরের অসুখ হাঁ করে কেবল সবুজ খায়’”—‘শহরের অসুখ’ বলতে কবি কী বুঝিয়েছেন? বক্তব্যটির তাৎপর্য বিশ্লেষণ করো।

[] শহরের অসুখ = ‘আমি দেখি’ কবিতায় কবি শক্তি চট্টোপাধ্যায় শহরের একটি প্রধান অসুখের কথা বলেছেন। শহর মানেই যন্ত্রসভ্যতার আগ্রাসন। ঘন জনবসতিপূর্ণ, কলকারখানা পরিবেষ্টিত শহরে মানুষ বিশুদ্ধ বাতাস গ্রহণেরও অবকাশ পায় না। যানবাহনের ধোঁয়ায় বাতাস দূষিত। প্রচুর জনঘনত্বের কারণে, বসতির প্রয়োজনে এবং স্বার্থান্বেষী মানুষের লোভে চলে অরণ্যনিধন। এরফলে শহরে সবুজের অভাব দেখা দেয়। শহরের আগ্রাসন, শহুরে মানুষের আগ্রাসী, লোভী মানসিকতাকে কবি ‘শহরের অসুখ’ বলতে চেয়েছেন।

[] তাৎপর্য = শহরে সাধারণত গাছপালা কম থাকে, চাষের জন্য বিস্তৃত শস্যক্ষেত্র, বিস্তীর্ণ জঙ্গল থাকে না। যতটুকু সবুজ শহরে থাকে তাও বায়ু ও মাটিদূষণের কারণে লুপ্ত হচ্ছে ক্রমশ। অন্যদিকে স্বার্থান্বেষী লোভী মানুষ নিজেদের স্বার্থে নির্বিচারে গাছপালা ধ্বংস করে। কৃত্রিম সুখের কারণে মানুষের এমন কার্যকলাপকে কবি শহরের চিরকালীন ‘অসুখ’ বলেছেন। এই অসুখের লক্ষণ হল সবুজকে গ্রাস করা। প্রকৃতির উপর নির্ভরশীল মানুষের প্রতিনিয়ত সভ্যতার বিকাশকে দোহাই দিয়ে সবুজ-নিধনকে এই কবিতায় কবি তুলে ধরেছেন।

উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা
error: সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত