‘আসল বাদাটার খোঁজ করা হয় না উচ্ছবের’—উচ্ছব কে? সে কোন বাদার খোঁজ করতে চেয়েছিল? সে বাদার খোঁজ করতে পারেনি কেন?

[] পরিচয়—উচ্ছব হলো মহাশ্বেতা দেবী রচিত ‘ভাত’ গল্পের প্রধান চরিত্র উৎসব। সে বাদা অঞ্চলের মানুষ হয়েও শাকপাতা, গুগলি, গেঁড়ি খেয়ে দিন কাটাতো।

[] কোন বাদা—শহরে কাজ করতে এসে উৎসব জেনেছিল, বড়ো বাড়ির চাল আসে বাদা থেকে। উৎসব চেয়েছিল সেই বাদার খোঁজ করতে, যে বাদা থেকে বড়ো বাড়ির চাল আসে।

[] কারণ—দীর্ঘদিনের উপোসী উৎসব ভাতের আশায় কলকাতায় এসে বড়ো বাড়িতে কাজ নিয়েছিল। সেখানে বিভিন্নরকমের চালের বহর দেখে উৎসব অবাক হয়ে যায়। বড়ো বড়িতে পাঁচ রকমের ভাত রান্না হয় প্রতিদিন—এমন কথা আগে সে শোনেনি কোথাও। উৎসব জানতে পারে, এইসব চাল বাদা থেকে আসে। অথচ উৎসব বাদা অঞ্চলের বাসিন্দা হয়েও তার ভাত জোটে না। এদিকে বড়ো বাড়িতে ভাতের ছড়াছড়ি। উৎসবের ইচ্ছা করে সেই বাদাটার খোঁজ করতে।

          বুড়ো কর্তা মারা গেলে অশৌচের সমস্ত ভাত ফেলে দিতে যায় বাসিনী। কিন্তু বাসিনীর নিষেধ অমান্য করে ভাতের ডেকচি নিয়ে পালায় উচ্ছব। প্রাণভরে ভাত খেয়ে স্টেশনেই ডেকচি নিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে সে। আর পরদিন পিতলের ডেকচি চুরির অপরাধে উৎসবকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। ট্রেনে করে ক্যানিং হয়ে দেশে যেতে চেয়েছিল উৎসব। আসল বাদার খোঁজ করতে চেয়েছিল। কিন্তু থানায় যাওয়ার পর তার আর আসল বাদার খোঁজ করা সম্ভব হবে না।

উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের শুভেচ্ছা
error: সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত